বুধবার শপথ নেবেন মমতা

মমতা সাংবাদিকদের বলেন, মুখ্যমন্ত্রী পদে শপথ নেওয়ার পরে তার সরকারের প্রধান কাজ হবে রাজ্যে করোনাভাইরাস পরিস্থিতি মোকাবিলা করা। তার পরেই বিজয় উৎসব

মুখ্যমন্ত্রী পদে আগামী বুধবার (০৫ মে) শপথ নেবেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এ নিয়ে টানা তৃতীয় বারের মতো ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেবেন তিনি।

সোমবার (০৩ মে) কলকাতার কালীঘাটে তৃণমূল কার্যালয়ে দলীয় বৈঠকের পর সংবাদ সম্মেলনে এ সিদ্ধান্ত জানানো হয়।

সংবাদ সম্মেলনে দলের মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায় জানান, সংসদীয় দলের নেত্রী নির্বাচিত হয়েছেন মমতাই।

তিনি আরও জানান, বৈঠকে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে, ৫ তারিখ শপথ নেবেন মমতা। তার পরে ৬ ও ৭ মে শপথ নেবেন বাকি বিধায়করা। সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বিধানসভার স্পিকার হবেন বিমান বন্দ্যোপাধ্যায়ই। স্পিকার নির্বাচনের দিন দায়িত্ব পালন করবেন সুব্রত মুখোপাধ্যায়।

তবে কারা মন্ত্রী মন্ত্রী হতে পারেন সে বিষয়ে কিছু বলেননি পার্থ।

পার্থ জানান, বৈঠকে বিধায়কদের মমতা বলেছেন, বিধায়ক হওয়ার পর অহঙ্কার করলে চলবে না। বরং দায়িত্ব আরও বেড়েছে।

এর আগে কালীঘাটে মমতা সাংবাদিকদের বলেন, মুখ্যমন্ত্রী পদে শপথ নেওয়ার পরে তার সরকারের প্রধান কাজ হবে রাজ্যে করোনাভাইরাস পরিস্থিতি মোকাবিলা করা। তার পরেই বিজয় উৎসব।

প্রসঙ্গত, পশ্চিমবঙ্গের বিধানসভা নির্বাচনে নিজ আসন নন্দীগ্রামে পরাজিত হয়েছেন তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কিন্তু তার দল সংখ্যা গরিষ্ঠতা অর্জন করেছে। বিষয়টি নিয়ে ধোঁয়াশা তৈরি হয়েছে যে, বিধায়ক হিসেবে নির্বাচিত না হয়েও কীভাবে মুখ্যমন্ত্রী হবেন মমতা?

ভারতীয় সংবিধানের ১৬৩-১৬৪ ধারা মোতাবেক, কাউকে মুখ্যমন্ত্রী বা রাজ্যের মন্ত্রিপরিষদের সদস্য হতে চাইলে বিধানসভার সদস্য হতে হবে। ওই ধারায় বলা হয়েছে, রাজ্যের বিধানসভার সংখ্যাগরিষ্ঠ আইনপ্রণেতারাই মুখ্যমন্ত্রী নির্বাচন করবেন।

এতে আরও বলা হয়েছে, টানা ছয় মাস মন্ত্রী কিংবা মুখ্যমন্ত্রী থাকতে গেলে তাকে রাজ্যের কোনো একটি আসন থেকে নির্বাচিত হয়ে আসতে হবে। অন্যথায় ১৮০ দিন পর তার পদ বাতিল হয়ে যাবে। এ শর্তপূরণ সাপেক্ষেই পশ্চিমবঙ্গের পরবর্তী মুখ্যমন্ত্রী হতে পারবেন তিনি।

পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভার ২৯৪টি আসনের মধ্যে ২৯২টি আসনে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। বাকী দুটি আসনে দুই প্রার্থী মৃত্যুবরণ করায় ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়নি।

সামনে ওই দুই আসনে উপনির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। ধারণা করা হচ্ছে, ওই দুই আসনের যে কোনো একটিতে প্রতিদ্বন্দিতা করে জয়লাভ করে মুখ্যমন্ত্রীর পদ পাকা করবেন মমতা।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.