ভাল নেই সংবাদপত্র

 ভাল নেই সংবাদপত্র

মনির হোসেন : চরম দুঃসময় পার করছে দেশের সংবাদপত্র। প্রতিনিয়ত এই সমস্যা বাড়ছে। সুনির্দিষ্ট কয়েকটি কারণে এই সংকট তৈরি হয়েছে। এর সবচেয়ে বড় কারণ হল পত্রিকার নিউজের প্রতি মানুষের আস্থা তলানিতে। ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনসহ রক্তচক্ষু উপেক্ষা করে চাইলেও সবকিছু লেখা যায় না। পুরো মিডিয়াতে এক ধরনের আতংক বিরাজ করছে। আর প্রকৃত ঘটনা প্রকাশিত না হওয়ায় মানুষ পত্রিকা পড়তে চায় না। যা পত্রিকার সার্কুলেশন ও আয়ে প্রভাব ফেলছে। আশির দশকে সংবাদপত্র এভাবে চাপের মুখে থাকায় বিবিসি রেডিও বাংলাদেশে জনপ্রিয় হয়ে উঠে। বর্তমানে সংবাদপত্রের বিকল্প হিসাবে ফেসবুক ও টুইটারসহ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলো জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। আর এর সুযোগ নিয়ে গুজব ছড়াচ্ছে একটি মহল।

দুর্নীতির সংজ্ঞা হল, ক্ষমতার অপব্যবহার। অর্থাৎ ক্ষমতা যাদের হাতে, দুর্নীতি তারাই করে। ফলে যে দেশে ক্ষমতাসীনদের বিপক্ষে সংবাদপত্র শক্ত অবস্থান নিতে পারেনি, ওই দেশে সংবাদপত্র বিকশিত হয়নি। এ কারণে জনসংখ্যায় এগিয়ে থাকলেও বিশ্বের শীর্ষ পত্রিকাগুলোর মধ্যে চীনের অথবা আরব দেশগুলোর কোনো পত্রিকা নেই।

আরেকটি সমস্যা হল বর্তমানে ডেমোগ্রাফিক ডিভিডেন্ডের (জনসংখ্যার বোনাসকাল) মধ্য দিয়ে যাচ্ছে দেশ। প্রায় ৩ কোটি মানুষের বয়স ১৫ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে। বিশাল সংখ্যক এই জনগোষ্ঠির বেশিরভাগই কাগজে ছাপা সংবাদপত্র পড়ে না। তারা ফেসবুকসহ বিভিন্ন অনলাইনের উপর নির্ভরশীল। ফলে কাগজের পত্রিকার সার্কুলেশনে এর নেতিবাচক প্রভাব ফেলছে।

সংবাদপত্রে সংকটের আরেকটি কারণ হল গত ৫ বছরে এখাতে টেকসই কোনো বিনিয়োগ আসেনি। এর অন্যতম কারণ হল অদক্ষ ও অপেশাদার লোকজন বাজারে সংবাদপত্র নিয়ে এসেছে। শুরুতে এরা উদ্যোক্তাদের আগ্রহী করার জন্য অবাস্তব কিছু স্বপ্ন দেখায়। ধারনা দেয়, সার্কুলেশনে অমুক পত্রিকাকে টপকে যাবে। ৬ মাস কিম্বা এক বছরের মধ্যে প্রতিষ্ঠান লাভজনক করে দেয়া নানা ধরনের বৈজ্ঞানিক ফর্মুলা দেয়। বিভিন্ন পত্রিকা থেকে বেশি টাকা বেতন দিয়ে ভাল ও পেশাদার কিছু সাংবাদিকও নিয়ে আসে। কিন্তু নির্দিষ্ট সময়ের পরে কথা আর কাজের মিল না পাওয়ায় মালিক পক্ষ পত্রিকা বন্ধ করে দেয়। এতে আগে থেকে পত্রিকার সম্পাদকসহ কর্তা ব্যক্তিরা মালিক পক্ষের কাছ থেকে নানা ধরনের সুবিধা হাতিয়ে নিলেও পেশাদার সাংবাদিকদের জীবনে দীর্ঘ বেকারত্ব ও দুর্বিসহ কষ্ট নেমে আসে। এভাবে কয়েকটি প্রজেক্ট ব্যর্থ হওয়ায় ভাল কোনো উদ্যোক্তা এখানে বিনিয়োগে আসছে না। সামগ্রিকভাবে যা শিল্পে আভ্যান্তরীণ প্রতিযোগিতা কমেছে। যা সাংবাদিকদের ক্ষেত্রে ওয়েজ বোর্ড বাস্তবায়ন, প্রমোশন ও বেতন বৃদ্ধির ক্ষেত্রে নেতিবাচক প্রভাব ফেলছে। অন্যদিকে গত দশ বছরে সবচেয়ে বেশি তেল মেরেছে ও অথচ সবচেয়ে কম সুবিধা পেয়েছে সাংবাদিকরা। সব পেশার লোকজন নিজস্বভাবে ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের লাইসেন্স, আবাসনসহ সরকারের কাছ নানা ধরনের সুযোগ সুবিধা লুফে নিয়েছে। খেলাপি ঋণ লাখ কোটি টাকা ছাড়িয়েছে। কিন্তু সাংবাদিকরা ব্যাংক ঋণের জন্য গেলে ব্যক্তিগত সম্পর্কের বাইরে পেশার পরিচয়ে ঋণ পাওয়া কঠিন।

সংবাদপত্রের দুর্দিনের অন্যতম আরেক কারণ হল পত্রিকার প্রচার সংখ্যা নিয়ে সীমাহীন মিথ্যাচার ও নজিরবিহীন দুর্নীতি। গত ১১ ফেব্র“য়ারি সংসদে তথ্যমন্ত্রীর দেয়া হিসাব অনুসারে সারাদেশে ১ হাজার ২৪৮টি দৈনিক পত্রিকা রয়েছে। এর মধ্যে ঢাকায় ৫০২ এবং সারা দেশে ৭৪৬টি। এছাড়া সারাদেশে সাপ্তাহিক পত্রিকা রয়েছে ১ হাজার ১৯২টি, মাসিক ৪১৪টি ও অন্যান্য ৪১টি। এর বাইরে দুই হাজার ২১৭টি অনলাইন মিডিয়া রয়েছে। যার মধ্যে অনলাইন পত্রিকা ১ হাজার ৮৭৪টি ও ইন্টারনেট টেলিভিশন ২৫৭টি, অনলাইন রেডিও ৪৫টি এবং ই- পেপার ৪১টি। কিন্তু দৈনিক পত্রিকার প্রচার সংখ্যার ক্ষেত্রে সরকারি সংস্থা ডিএফপি সীমাহীন মিথ্যাচার করছে। ডিএফপির তথ্যে দেয়াল পত্রিকাগুলোরও লাখ লাখ সার্কুলেশন দেখানো হয়েছে। বাস্তবতা হচ্ছে, রাজধানীর ফকিরাপুলও বিভিন্ন জায়গা থেকে শুধু মাষ্টহেড পরিবর্তন করে অন্যান্য সব সংবাদ ঠিক রেখে একেকটি প্রেস থেকে একাধিক পত্রিকা প্রকাশিত হচ্ছে। এই প্রক্রিয়ায় এই সব ভুইঁফোর পত্রিকার মালিক পক্ষ একদিকে সরকারি বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে, অপরদিকে সংবাদপত্রের নামে কম শুল্কে নিউজ প্রিন্ট আমদানি করে বেশি দামে বাজারে বিক্রি করছে। এছাড়াও গাড়িতে সংবাদপত্র, প্রেস, সাংবাদিক জাতীয় স্টিকার ব্যবহার এবং মানুষকে ব্লাকমেইল করে টাকায় আদায়ের ঘটনাতো সবার জানা। সাংবাদিকদের বিভিন্ন সংগঠনের নেতারাও ভোট ব্যাংক তৈরির জন্য এসব পত্রিকার লোকজনকে সংগঠনের মেম্বরশীপ দিচ্ছে।

সংবাদপত্রের আরেকটি সমস্যা হল বেসরকারি বিজ্ঞাপন আয় কমে যাওয়া। দেশে ব্যবসা বাণিজ্য স্থবির থাকায় বিজ্ঞাপন কমেছে। এছাড়া যত বেশি গণমাধ্যমের অনুমোদন দেয়া হয়েছে, ওই হারে বিজ্ঞাপনের বাজার বাড়েনি। ফলে বিদ্যমান বিজ্ঞাপন নিয়ে এখানে অসুস্থ প্রতিযোগিতা তৈরি হয়েছে। ফলে খুব কম রেটেই গণমাধ্যমে বিজ্ঞাপন ছাপা হচ্ছে। স্বাভাবিক কথা হল, কোম্পানিগুলো নিজেদের ব্রান্ডিং ও প্রচারণার জন্য বিজ্ঞাপন দেয়। কিন্তু বর্তমানে বিজ্ঞাপন পেতে হলে তদ্বিরতো লাগেই। এরপর কোনো কোনো ক্ষেত্রে কোম্পানিগুলোর উপর চাপ সৃষ্টি করতে হচ্ছে। এসব কারণে আগামীতে সংবাদপত্রের জন্য হয়তো অন্ধকার সময় অপেক্ষা করছে।
(বিশেষ দ্রষ্টব্য : একান্তই মতামত। ব্যাক্তিভাবে কাউকে কষ্ট দেয়ার জন্য নয়)।
লেখক : সাংবাদিক, দৈনিক যুগান্তর

mimmahmud

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.