করোনায় প্রথম বিচারকের মৃত্যু
নিজস্ব প্রতিবেদক,ঢাকা
করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত লালমনিরহাটের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন বিশেষ ট্রাইব্যুনালের বিচারক (জেলা জজ) ফেরদৌস আহমেদ চলে গেলেন।
এরই মধ্যে ২৬ জন বিচারক করোনা ভাইরাসে সংক্রমিত হয়েছেন। ফেরদৌস আহমেদ প্রথম বিচারক যিনি করোনা ভাইরাসে সংক্রমিত হয়ে মারা গেলেন।
গতকাল বুধবার রাত আটটায় তিনি ঢাকায় সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। সুপ্রীম কোর্টের মুখপাত্র মোহাম্মদ সাইফুর রহমান এ তথ্য নিশ্চিত করেন।
এদিকে বিচারকের মৃত্যুতে আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক এমপি গভীর শোক প্রকাশ করেছেন।বাংলাদেশ জুডিশিয়াল সার্ভিস এসোসিয়েশের মহাসচিব বিকাশ কুমার সাহা গভীর শোক প্রকাশ করেছেন।
ফেরদৌস আহমেদ প্রায় দুই সপ্তাহ ধরে সিএমএইচ এর আইসিইউতে চিকিৎসাধীন ছিলেন। সেখানে তাকে প্লাজমা দেওয়া হয়েছিল। অধস্তন আদালতের ২৬ জন বিচারক করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। এদের মধ্যে বেশ কয়েকজন ঢাকায় বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। এর মধ্যে ফেরদৌস আহমেদ একজন। এছাড়া আদালতের ৯৭ জন কর্মচারী করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এর মধ্যে সুপ্রিম কোর্টের ২৬ জন ও অধস্তন আদালতের ৭১ জন কর্মচারী রয়েছেন।
ভার্চ্যুয়াল পদ্ধতিতে আদালতে বিচারকাজ পরিচালনা ও দায়িত্ব পালনের সময় এ পর্যন্ত (২০ জুন) সারা দেশের অধস্তন আদালতের ২০ জন বিচারক করোনাভাইরাসে (কোভিড-১৯) আক্রান্ত হয়েছেন। এই সময়ে সুপ্রিম কোর্টের ২৪ জন কর্মচারী ও অধস্তন আদালতের ৫৯ জন কর্মচারী করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হন। কোভিড-১৯ উপসর্গ নিয়ে সে সময় আইসোলেশনে ছিলেন আরও ছয়জন বিচারক।
২৩ জুন সুপ্রিম কোর্ট প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, তিন দিনের ব্যবধানে অধস্তন আদালতের আরও ছয়জন বিচারক করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। আর সুপ্রিম কোর্টের দুজন এবং অধস্তন আদালতের ১২ জন কর্মচারী করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.