নিউজ ডেস্ক : জেএনইউ, হিন্দু-মু’সলিম, মন্দির-ম’সজিদ নিয়ে দ্বন্দ্বের মাঝে এমন খবর হয়তো ট্রেন্ডি-এ থাকবে না। কিন্তু বলতে পারেন, এটাই এখন দেশের আসল ছবি। একজন মা তাঁর তিন সন্তানের মুখে খাবার তুলে দেওয়ার জন্য নিজের মা’থার চুল বিক্রি করে দিল। দুই, তিন ও পাঁচ বছরের তিন সন্তান তাঁর। কারও মুখেই খাবার তুলে দিতে পারছিলেন না প্রে’মা। রোজগার নেই। পড়শিরাও সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিতে অস্বীকার করেছে। তাই আর কোনও উপায় ছিল না তাঁর কাছে। নিজের মা’থায়র সমস্ত চুল বিক্রি করে প্রে’মা হাতে পেলেন ১৫০ টাকা। তাতে অন্তত একটা দিন তাঁর সন্তানের পেটের ভাত জুটল।

তামিলনাড়ুর সালেমের ঘটনা। প্রে’মা’র স্বামী ধার-দেনায় ডুবে গিয়েছিলেন। পাওনাদারদের অসহ্য চাপ সহ্য করতে না পেরে মাস সাতেক আগে তিনি আত্মহ’ত্যা করেন। তার পর থেকে তিন সন্তানকে নিয়ে অথৈ জলে পড়েছেন প্রে’মা। হাজার চেষ্টা করেও কোনও কাজ জোটাতে পারেননি। কোনও পথ খুঁজে না পেয়ে পড়শিদের কাছে হাত পেতেছিলেন প্রে’মা। কিন্তু লাভ হয়নি। দিনের পর দিন পেটের জন্য লড়াই। আর ভাল লাগছিল না প্রে’মা’র। তাই তিন সন্তানকে ফেলে রেখে আত্মহত্য়া করার সিদ্ধান্তও নিয়েছিলেন প্রে’মা। কিন্তু তাঁর সেই ফন্দি শেষ পর্যন্ত সফল হয়নি।

হাতে পাওয়া ১৫০ টাকা দিয়ে দোকানে কী’টনাশক কিনতে গিয়েছিলেন প্রে’মা। পরিকল্পনা ছিল, কী’টনাশক খেয়ে আত্মহ’ত্যা করবেন। কিন্তু প্রে’মা’র হাবভাব দেখে দোকানদারের স’ন্দেহ হয়। তিনি তাই কী’টনাশক বিক্রি করেননি। এর পর বিষাক্ত গাছ খেয়ে ম’রতে চেয়েছিলেন প্রে’মা। কিন্তু তাতে বাধা দেয় তাঁর বোন। দিনের পর দিন দারিদ্রের সঙ্গে লড়াই! কতদিন আর মন শক্ত করে লড়তেন তিনি। প্রে’মা’র দুর্ভাগ্যের কথা জানাজানি হওয়ার পর অবশ্য অনেকেই সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেন। সালেমের জে’লা প্রশাসন তাঁকে বিধবা ভাতা দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.