স্টাফ রিপোর্টার :   সরকারি নির্দেশনা না থাকার পরও মেঘনা পেট্রোলিয়ামের আওতাধীন রাজধানীর পেট্রল পাম্পগুলো বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। শুক্রবার সন্ধ্যার পর থেকে ৩০ ডিসেম্বর ভোট শেষ না হওয়া পর্যন্ত তেলের পাম্প বন্ধ থাকবে বলে পাম্পগুলোর প্রবেশ পথে বিজ্ঞপ্তি টানিয়ে দেয়া হয়েছে।  

রাজধানীর পরীবাগ পাম্পে গিয়ে জনৈক মামুন রশীদ দেখেন ২৯ ডিসেম্বর থেকে ৩০ ডিসেম্বর পর্যন্ত পাম্পে তেল বিক্রি হবে না। নির্বাচন কমিশনের ঘোষণা না থাকার পরও কেন পেট্রলপাম্প বন্ধ করে দেয়া হলো, এ বিষয়টি জানতে চাইলে দায়িত্বরত ব্যক্তিরা তার সঙ্গে দুর্ব্যবহার করেন বলে অভিযোগ করেন মামুন।

রাজধানীর তেল ও সিএনজি পাম্পগুলো কোনো ঘোষণা ছাড়া বন্ধের খবর পেয়েছেন সিএনজি ফিলিং স্টেশন অ্যান্ড কনভারশন ওয়ার্কশপ ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক ফারহান নূর। তিনি বলেন, সিএনজি পাম্প স্টেশনগুলো বন্ধের খবর বিভিন্নভাবে জানতে পেরেছেন। অনেকে তাদের কাছে জানতে চেয়েছেন যে, তারা সিএনজি নিতে পারবেন কিনা। তবে সরকারের কোনো সংস্থা এ ধরনের নির্দেশনা দেয়নি বলেও তিনি জানান।

নির্বাচন কমিশনের কোনো ঘোষণা না থাকার পরও কেন তেল বিক্রি বন্ধ রাখা হয়েছে, জানতে চাইলে মেঘনা পেট্রোলিয়াম লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মীর সাইফুল্লাহ আল খালেদ বলেন, “আমরা তেল বিক্রি বন্ধ রাখার কোনো নির্দেশ দিইনি। কোনো নির্দেশনা ছাড়া এভাবে তেল বিক্রি বন্ধ রাখার সুযোগ নেই। শুধু নির্বাচনের দিন পাম্পের কর্মচারী-কর্মকর্তারা যাতে ভোট দিতে পারেন, সে জন্য ওই দিন পাম্প বন্ধ থাকবে। যেখানে তেল বিক্রি বন্ধ রয়েছে, আমি এখনই তা চালু করার জন্য নির্দেশ দিচ্ছি। আগামীকাল মেঘনার সব ডিলার ও তেলের পাম্প খোলা থাকবে।” 

তেলের পাম্প তো জনগুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা। এটি কি বন্ধ রাখার সুযোগ আছে, এ বিষয়ে মীর সাইফুল্লাহ আল খালেদ বলেন, নির্বাচনের দিন সব গাড়ি চলাচল বন্ধ থাকবে। সে কারণে তেলেরও প্রয়োজন হবে না। আজ শুক্রবার রাত ও শনিবার তেল বিক্রি চালু থাকবে বলে তিনি জানান।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.