ডেস্ক প্রতিবেদন : কর্মক্ষেত্রে নারীর বিরুদ্ধে যৌন হেনস্থা নিয়ে হলিউডে শুরু হওয়া #MeToo আন্দোলনে বলিউড এখন উত্তপ্ত। #MeToo এর এই ঢেউ বাংলাদেশেও লেগেছে। ইতোমধ্যেই একজন দুজন করে তাদের জীবনে ঘটে যাওয়া যৌন হয়রানির ঘটনা, নির্যাতকের নাম প্রকাশ্যে নিয়ে আসতে শুরু করেছেন।

এবার মুখ খুললেন নারী বিষয়ক প্রথম অনলাইন নিউজ পোর্টাল Women Chapter এর ইংরেজি সংস্করণের সম্পাদক শুচিস্মিতা সিমন্তি। নিজের ফেসবুক ওয়ালে তিনি পোস্ট করে জানান, তিনি যৌন নির্যাতনের শিকার হয়েছিলেন। বাংলাদেশের একজন গণমাধ্যম কর্মী তাকে এই নির্যাতন করেন। তবে তার পুরো নাম প্রকাশ না করে নামের আদ্যাক্ষর P.S. ব্যবহার করেছেন।

বুধবার ফেসবুকে শুচিস্মিতা লেখেন, ১১ বছর আগে যখন তার ১৬ বছর বয়স তখন তাদের পারিবারিকভাবে ঘনিষ্ট গণমাধ্যমের অত্যন্ত পরিচিত মুখ এই P.S. তাকে যৌন হয়রানি করেছে। বিভিন্ন সময় অশালীনভাবে তাকে স্পর্শ করেছে।

তিনি বলেন, ‘আমার হাই স্কুলের সেই দিনে আমি সম্পুর্ণ ভেঙ্গে পড়েছিলাম এই লোকের জন্যে। এক দশক ধরে এই মানসিক যন্ত্রণা আমি বয়ে বেড়াচ্ছি, এ ঘটনা আমার জীবনে এক স্থায়ী ক্ষতের সৃষ্টি করেছে।’

শুচিস্মিতা তার পোস্টের মাধ্যমে প্রতিটা পরিবারের কাছে আবেদন জানিয়েছেন যেন পরিবারগুলো তার সন্তানের জন্যে একটি সুস্থ পরিবেশ নিশ্চিত করে যাতে করে তাদের সন্তান এ ধরণের হয়রানির শিকার হলে পরিবারকে জানাতে পারে।

সাম্প্রতিক সময়ে সুইডেনে রাজনৈতিক আশ্রয় গ্রহণকারী সাংবাদিক বাংলা Women Chapter এর সম্পাদক সুপ্রীতি ধরের কন্যা শুচিস্মিতা সিমন্তি তার পোষ্টের শেষে অভিযুক্তের প্রতি ঘৃণা প্রকাশ করে বলেছেন, ‘আমি তোমাকে ঘৃণা করি P.S., তোমাকে কখনই ক্ষমা করবো না।’

ঢাকার গণমাধ্যম পাড়ায় এ নিয়ে তোলপাড় শুরু হয়েছে। কে এই P.S. তা নিয়ে চলছে নানা গুঞ্জন। এদিকে ‘কে এই পি এস?’ তা প্রকাশ করে দিয়ে ফেসবুকে পোস্ট দিয়েছেন কিছু সক্রিয় গণমাধ্যম কর্মী।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.