ডেস্ক : থাইল্যান্ডের ভয়ংকর গভীর অন্ধকার গুহায় দীর্ঘ নয় দিন আটকে থাকার পর ১২ কিশোর ফুটবলার ও তাদের কোচকে জীবিত পাওয়া গেছে। দুই জন বৃটিশ ডুবুরি থাইল্যান্ডের চিয়াং রাই অঞ্চলের থাম লয়াং নং নন গুহায় খোঁজ পান।

খোঁজ পাওয়ার পরে ডুবুরিরা কিশোরদের আশস্ত করে বলেন, আমরা তোমাদের খোঁজ পেয়েছি, তোমরা ধৈর্য্য ধরো তোমাদের উদ্ধার করার জন্য আরো লোক আসছে।

ডুবুরিদের এমন কথা শুনে গুহায় আটকে থাকা সাহসী এক কিশোর বলে ওঠে, ঠিক আছে, কাল দেখা হবে।

গুহায় আটকে পড়া থাই কিশোরদের খোঁজ পাওয়া গেলেও বর্ষার কারণে তাদের উদ্ধার করতে ১ মাস অপেক্ষা করতে হতে পারে বলে জানিয়েছেন থাই সেনাবাহিনীর মুখপাত্র। তবে তাদের উদ্ধারের আগে খাবার ও পানি সরবাহ করতে হবে।

এদিকে আটকে পড়া কিশোরদের কাছে ত্রাণ পৌঁছানোর জন্য গুহার মধ্যে প্রবল পানির সঙ্গে যুদ্ধ করছে উদ্ধারকর্মীরা।

সেনা বাহিনী বলছে, বর্ষার কারণে ৪ মাসের খাবার পৌছানোর প্রস্তুতি রাখতে হবে।

নয় দিন নিখোঁজ হওয়া এই কিশোর ফুটবলারদের খোঁজ পাওয়ার ভিডিও চিত্র থাই নৌ বাহিনীর বিশেষ ফোর্স ফেসবুক পেজে পোস্ট করেছে।

ভিডিওতে দেখা যায়, কিশোররা একটু উঁচু জায়গায় এক সঙ্গে বসে আছে। তারা সবাই বেশ ক্ষুধার্ত।

অন্ধকার গুহায় তারা কতদিন আটকে থাকবে, কিভাবে উদ্ধার পাবে-এ বিষয়ে সুনির্দিষ্ট করে উদ্ধারকারীরা কিছু বলতে পারছে না। ।

এদিকে এই উদ্ধার কাজে গোটা থাই জাতিকে একত্রিত করে ফেলেছে। গত নয় দিনের উদ্ধার চেষ্টায় থাই কিশোরদের এই দলটি গুহার মধ্যে কোথায় কেমন ছিল বোঝা যাচ্ছিল না। নিখোঁজদের স্বজনদের সঙ্গে গোটা জাতি উদ্বিগ্ন ছিল।

গুহার মধ্য থেকে তাদের কিভাবে বের করা হবে- এ বিষয়ে চলছে গবেষণা। প্রায় ১০ মাইল লম্বা থাইল্যান্ডের এ গুহা।যা বিশ্বের অন্যতম দীর্ঘ গুহা।

এ এলাকায় চলছে এখন বর্ষাকাল। যা সেপ্টেম্বর পযর্ন্ত অব্যাহত থাকবে। এজন্য উদ্ধার কাজ কিছুটা বিলম্ব হতে পারে। তবে এ বর্ষা পেরিয়ে যাওয়ার আগে তাদের উদ্ধার করা বিষয়ে খুব সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে। যদি তাদের উদ্ধার করতে হয় তাহেলে অবশ্যই ডুবুরিদের মতো পানিতে ডুবে থাকার প্রশিক্ষণ দিতে হবে কিশোরদের, যা খুব বিপদজ্জনক।

বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, অনভিজ্ঞ ডুবুরিকে এ অবস্থা থেকে বের করে নিয়ে আসা খুব বিপদজ্জনক। এই শিশু কিশোরদের অক্সিজেনের অভাব যেন না হয়, তার ব্যবস্থা করতে হবে। ইতিমধ্যে কয়েক হাজার অক্সিজেন সিলিন্ডার সরবরাহের জন্য ব্যবস্থা করা হয়েছে।

যতক্ষণ পযর্ন্ত কিশোরদের উদ্ধার করা না হয় তাদের অব্যাহতভাবে খাদ্য ও পানির সরবরাহ নিশ্চিত করতে হবে। বিশেষ প্রশিক্ষিত ডাক্তারদের পাঠাতে হবে তাদের স্বাস্থ্যের খোঁজ খবর নিতে হবে। চিকিৎসারও প্রয়োজন হবে। মানসিক শক্তি যোগানোর জন্য প্রয়োজন হবে মনোবিদের।

থাইল্যান্ডের চিয়াং রাই অঞ্চলের থাম লয়াং নং নন নামের ঐ পর্যটন গুহায় গত ২৩ জুন নিখোঁজ হয় এসব কিশোর ফুটবলার ও তাদের তরুণ সহকারী কোচ। যাদের বয়স ১১ থেকে ১৬ বছরের মধ্যে। নিখোঁজের পর গুহার পাশে তাদের সাইকেল এবং খেলার সামগ্রী পড়ে থাকতে দেখা যায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.