নিজস্ব প্রতিবেদক : গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচন প্রত্যাখ্যান করে বিএনপি প্রকারান্তরে গাজীপুরের জনগণকে চরম অসম্মান করেছে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, ‘গাজীপুরে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন হয়েছে। সেখানে ভোট ডাকাতির উৎসব অভিহিত করে তারা (বিএনপি) প্রকারান্তরে গাজীপুরের জনগণের অধিকার, গণতান্ত্রিক রীতিনীতির প্রতি চরম অসম্মান করেছে। আমরা এর তীব্র নিন্দা জানাই।’

বুধবার (২৭ জুন) সকালে ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর রাজনৈতিক কার্যালয়ে দলের পক্ষ থেকে সংবাদ সম্মেলনে এ মন্তব্য করেন তিনি।

গাজীপুর সিটি নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হয়েছে দাবি করে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘তাদের নালিশ গাজীপুরের মানুষ গ্রহণ করেনি। এখন গাজীপুর নিয়ে একটা আন্দোলন করুক না। দেখুক জনগণ সাড়া দেয় কিনা? দেবে না। বাংলাদেশের মানুষ গাজীপুরের নির্বাচনের মাধ্যমে আবারও প্রমাণ করেছে নেতিবাচক রাজনীতির দিন শেষ, সাম্প্রদায়িক রাজনীতির দিন শেষ, বোমাবাজি-লুটপাটের রাজনীতির দিন শেষ।’

গাজীপুরবাসী আহসানউল্লা মাস্টারের হত্যাকারীদের সমুচিত জবাব দিয়েছে মন্তব্য করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘বিএনপি নৌকার ব্যাজ লাগিয়ে ভোট সন্ত্রাস করেছে। যা তাদের একজন কেন্দ্রীয় নেতা ও শিমুলিয়ার স্থানীয় নেতার ফোনালাপে বেরিয়ে এসেছে। তা থেকে প্রমাণিত বিএনপি বরাবরের মতো পরিকল্পিতভাবে অরাজকতা, সন্ত্রাস, বিশৃঙ্খলা, নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করার ষড়যন্ত্র করেছে। তাদের ষড়যন্ত্র জাতির সামনে উঠে এসেছে। গাজীপুর সিটি নির্বাচনে জনগণ বিএনপি-জামায়াতের সন্ত্রাসের জবাব দিয়েছে। আহসানউল্লা মাস্টারের হত্যাকারীদের বিরুদ্ধে ঐতিহাসিক রায় দিয়েছেন গাজীপুরবাসী।’

এই নির্বাচনের ফলাফলের মাধ্যমে বিএনপি জনগণ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যাচ্ছে তা প্রমাণিত বলেও দাবি করেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক। তিনি বলেন, ‘বিএনপি নেতারা বুঝতে পারেনি ভীতি সঞ্চার করে জনগণের মতামত পরিবর্তন করা যায় না। গাজীপুর সিটি নির্বাচনে তা আবারও প্রমাণিত হয়েছে। বিএনপি নেতাদের বোঝা উচিত, লুটেরাদের, দুর্নীতিবাজদের দল ক্রমাগত জনগণ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যাচ্ছে। খুলনার পর এখন গাজীপুরের ফলাফল এর প্রমাণ।’

সংবাদ সম্মেলন ওবায়দুল কাদের, ছবি ফোকাস বাংলাক্লিন ইমেজের প্রার্থী দেওয়ায় আওয়ামী লীগ আগেই অর্ধেক এগিয়ে ছিল দাবি করে তিনি বলেন, ‘ক্লিন ইমেজের প্রার্থী দেওয়ায় আমরা প্রাথমিকভাবে নির্বাচনে এগিয়ে ছিলাম। জাহাঙ্গীর আলমের সঙ্গে বিএনপি প্রার্থী মিলিয়ে দেখুন। ’

বিএনপি হারের পর শিষ্টাচারবহির্ভূত বক্তব্য দিচ্ছে বলে দাবি করে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘গাজীপুর সিটি নির্বাচনে বিপুল ভোটের ব্যবধানে পরাজিত হওয়ার পরও এই নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে বিএনপি নেতারা শিষ্টাচারবহির্ভূত মিথ্যাচারে লিপ্ত রয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘অনিয়ম যেটা সেটাকে আমরাও অনিয়ম হিসেবে মেনে নিয়েছি। কাউন্সিলর প্রার্থীদের দ্বন্দ্বের কারণে ৯টি কেন্দ্রের ভোট স্থগিত রাখা হয়েছে। এই ৯টি কেন্দ্র ছাড়া কোথায় কোথায় অনিয়ম হয়েছে এটা বিএনপিকে বলতে হবে। অন্ধকারে ঢিল ছুড়লে হবে না। এটা স্পর্শকাতর বিষয়। দোষারোপ করার আগে আপনাদের প্রমাণ হাতে রাখতে হবে।’

বিএনপি নেতাদের নেতিবাচক রাজনীতি থেকে বেরিয়ে আসার আহ্বান জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আমরা বিএনপি নেতাদের কাছে আহ্বান জানাই, মিথ্যাচার অপরাজনীতির সংস্কৃতি থেকে বেরিয়ে আসুন। গণতান্ত্রিক রাজনীতিতে ফিরে আসুন। ইতিবাচক রাজনীতির ধারায় ফিরে আসুন।’

সংবাদ সম্মেলনে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য আব্দুর রাজ্জাক, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক, সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, এনামুল হক শামীম, দফতর সম্পাদক আব্দুস সোবহান গোলাপ, উপ-দফতর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া, উপ-প্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন উপস্থিত ছিলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.