নিজস্ব প্রতিবেদক : গ্রেফতার হওয়া নব্য জেএমবির ‘নারী শাখার প্রধান’ হোমায়রা ওরফে নাবিলাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য হেফাজতে নিয়েছে পুলিশের কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্স ন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) ইউনিট। বৃহস্পতিবার আদালত তাকে দুই দিনের রিমান্ডে নেয়ার আবেদন মঞ্জুর করেছেন।

এর আগে রাজধানীতে নিজ বাসা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। তার বিরুদ্ধে জঙ্গি কর্মকাণ্ডে অর্থায়ন করা ও গত বছরের ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবসে জঙ্গি হামলার পরিকল্পনায় জড়িত থাকার অভিযোগ রয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশের সিটিটিসি ইউনিট।

পুলিশের কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইমের উপকমিশনার মোহাম্মদ মহিবুল ইসলাম খান জানান, হোমায়রা ওরফে নাবিলা নব্য জেএমবির নারী শাখা ‘ব্যাট উইমেন’-এর প্রধান ছিলেন। ধনাঢ্য ব্যক্তির সন্তান হোমায়রা নিয়মিত জঙ্গিকাজে অর্থায়ন করতেন।

হোমায়রা ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজ থেকে এইচএসসি পাস করেন। পরে নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয় ও মালয়েশিয়ায় পড়ালেখা করেছেন।

১৫ আগস্ট হোটেল ওলিও ইন্টারন্যাশনালে অভিযান চালিয়ে পুলিশ যে জঙ্গি হামলার চেষ্টা নস্যাৎ করে, সেই ঘটনায় সম্পৃক্ততার অভিযোগে প্রথমে খুলনা থেকে আত্মঘাতী বোমা হামলাকারী সাইফুলের বন্ধু আবদুল্লাহ বিন মোসাদ্দেক সামিকে গ্রেফতার করে।

এরপর গত ২০ নভেম্বর গ্রেপ্তার দেখানো হয় করিম ইন্টারন্যাশনাল নামে একটি প্রকাশনা সংস্থার কর্ণধার তানভীর ইয়াসিন করিমকে। বৃহস্পতিবার গ্রেপ্তার হওয়া হোমায়রা ওরফে নাবিলা হলেন তানভীরের স্ত্রী। পুলিশ বলছে, হোমায়রাই তানভীরকে জঙ্গিবাদে উদ্বুদ্ধ করেন এবং আকরাম হোসেন খান নিলয়ের মাধ্যমে জঙ্গি কর্মকাণ্ডে অর্থায়ন করেন। আকরামও এখন পুলিশের জিম্মায়।

এদিকে তামিম গ্রুপের সঙ্গে জঙ্গি সম্পৃক্ততার অভিযোগে লালমনিরহাটের হাতীবান্ধার ধূবনী গ্রামে সাদিয়া আফরোজ ওরফে নিনাকে (২৪) তাঁর নিজ বাড়ি থেকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। সে রংপুরের বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের হিসাববিজ্ঞান বিভাগের চতুর্থ বর্ষের ছাত্রী।

সাদিয়া আফরোজ ওরফে নিনা (বোরখা পরিহিত)

বিবার্তার লালমনিরহাট প্রতিনিধি জিন্নাতুল ইসলাম জানিয়েছেন, আটকের পর নিনাকে ডিবি পুলিশ ও হাতীবান্ধা থানার পুলিশ যৌথভাবে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে। বৃহস্পতিবার হাতীবান্ধার থানার এসআই আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ বাদী হয়ে আটক সাদিয়া আফরোজ তার বিরুদ্ধে ১৯৭৪ সালের বিশেষ ক্ষমতা আইনে একটি মামলা করেন। সাদিয়াকে এ মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় লালমনিরহাটের আমলি আদালত-৪-এর (হাতীবান্ধা) বিচারক আফাজ উদ্দিনের আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা লালমনিরহাট ডিবি পুলিশের এসআই সিদ্দিকুল হক জানান, তাকে আরো জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আদালতে পাঁচ দিনের রিমান্ড আবেদন করা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.