গ্রামবাসীর সাথে সংঘর্ষ, দিনাজপুরে ৪০ ডিবি পুলিশ বদলি

 গ্রামবাসীর সাথে সংঘর্ষ, দিনাজপুরে ৪০ ডিবি পুলিশ বদলি

দিনাজপুর প্রতিনিধি : গ্রামবাসীর সাথে গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) সদস্যদের সংর্ঘষের জের ধরে দিনাজপুর ডিবি পুলিশের ৪০ জনকে বদলি করা হয়েছে। এর মধ্যে ১০ জন এসআই, পাঁচজন এএসআইসহ ৪০ জন। তবে পুলিশ সুপার হামিদুল আলম বলেছেন, এটি নিয়মতান্ত্রিক বদলি। এই বদলির সাথে সংঘর্ষের কোনো সূত্র নেই।

পুলিশের একটি নির্ভরযাগ্য সূত্র নিশ্চিত করেছেন, দিনাজপুর ডিবি পুলিশের ১০ জন এসআই, ৫ জন এএসআইসহ মোট ৪০ জনকে সোমবার বদলি করেন পুলিশ সুপার। তবে ডিবি পুলিশের দু’জন পরিদর্শক মনিরুজ্জামান ও মোস্তাফিজুর রহমানের বদলির আদেশ এখনও আসেনি।

পুলিশের ওই সূত্রটি জানায়, পরিদর্শকের বদলির আদেশ আসবে ডিআইজি কার্যালয় থেকে। তাই সেখান থেকে আদেশ আসতে দেরি হচ্ছে। তবে ডিবির সকলকেই বদলি করা হয়েছে। যারা অভিযোগের সাথে জড়িত নয়, তাদেরকে দিনাজপুরেই রাখা হচ্ছে আর যারা অভিযোগের সাথে জড়িত তাদেরকে অন্যত্র পাঠিয়ে দেয়া হবে।

এ ব্যাপারে দিনাজপুর ডিবির পরিদর্শক (ওসি) মনিরুজ্জামান সাংবাদিকদের জানান, ডিবির পুরো স্টাফকেই বদলি করা হয়েছে। তবে তাকে (মনিরুজ্জামান) বদলি করা হয়েছে কিনা তা জানা নেই। এখনও তিনি আদেশ পাননি।

সোমবার রাতে দিনাজপুরের পুলিশ সুপার হামিদুল আলম জানান, ডিবি’র পুলিশ পরিদর্শক ছাড়াও সকল স্টাফকে বদলি করা হয়েছে। তবে গ্রামবাসীদের সাথে সংঘর্ষের জেরে গণবদলির বিষয়টি নাকচ করে তিনি বলেন, রুটিন মাফিক তাদের বদলি করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, গত রবিবার বিকেলে এসআই রেজাউল ইসলাম ও এএসআই জামিলের নেতৃত্বে দিনাজপুর সদর উপজেলার মহব্বতপুর গ্রামে ডিবি পুলিশ মাদকবিরোধী অভিযান চালায়। এ সময় নুরুজ্জামান (২২) নামের এক যুবকের কাছে মাদক আছে বলে তাকে মারধর করে। এতে এলাকাবাসী বাধা দিলে ডিবি পুলিশের সাথে তাদের কথা-কাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে স্থানীয়দের ওপর ডিবি পুলিশ লাঠিচার্জ করলে ডিবি পুলিশের সাথে স্থানীয়দের সংঘর্ষ বেধে যায়।

এ সময় সেখানে থাকা ডিবি পুলিশ পালিয়ে যায় এবং পরক্ষণে অতিরিক্ত পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে গ্রামবাসীর ওপর বেধরড়ক মারধর শুরু করে। এতে তিন ডিবি পুলিশসহ কমপক্ষে ১৫ জন গ্রামবাসী আহত হয়।

এ ঘটনায় এলাকার লোকজন রাস্তায় এসে জড়িত ডিবি পুলিশের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের দাবিতে সড়ক অবরোধ করে। তারা সড়কে গাছের গুড়ি ও ইট দিয়ে অবরোধ করে যানচলাচল বন্ধ করে দেয়। পরে রাতে জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাহফুজ্জামান আশরাফ ঘটনাস্থলে গিয়ে এলাকাবাসীকে শান্ত করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

mimmahmud

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.