সাইদুজ্জামান, টাঙ্গাইল থেকে : টাঙ্গাইলে সড়ক দুর্ঘটনায় আট জন নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে অন্তত ৭ জন। বেলা সাড়ে তিনটার দিকে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে ভাতকুড়া নামকস্থানে একটি ট্রাকের সাথে মাইক্রোবাসের সংঘর্ষ হয়। এতে ঘটনাস্থলেই ৫ জন নিহত হয়।
হাসপাতলে নেয়ার পর আরো তিন মারা যায়। এতে মুত্যুর সংখ্যা দাঁড়ায় ৮ জনে। আহত হয় আরো ৭ জন। আহতদের শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে  ভর্তি করা হয়েছে।
নিহতরা হলেন ড্রাইভার বুলু(৩৫) আহত মনিরুজামান রতনের মাতা মমতাজ বেগম (৫৫) শ্বাশুরী হাজেরা বেগম (৫২) বউ তাহমিনা আক্তার সুমা শালিকা শম্পা (৮) মেহেদী হাসান (২৫) রেজবী (১৪) শুভ (৪৫) সোহেল রানা ।
আহতরা হচ্ছে গাজিপুর উপজেলা বাঁশতৈল গ্রামের হাবিল উদ্দিনের ছেলে মনিরুজ্জামান রতন (৩৫) পাপন (৩২) শ্বশুর আলিম উদ্দিন (৬০) রতনের স্ত্রী তাহমিনা আক্তার সুমা, রতনের শালি সম্পা আক্তার (২৪) ওমর ফারুক (৩৮) গাজিপুর উপজেলার মায়া বেগম মঞ্জুলাল মিয়া।
এলেঙ্গা হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ সার্জেন্ট জাহাঙ্গীর আলম আমাকে জানান, দুপুরে মহাসড়কের ভাতকুড়া এলাকায় ঢাকামুখী একটি মাইক্রোবাসের সাথে উত্তরবঙ্গগামী একটি ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে দুর্ঘটনাকবলিত মাইক্রোবাসটি দুমড়ে মুচড়ে যায়।
দুপুর ৩ টার দিকে মনিরুজ্জামানের শ্বশুর বাড়ি সিরাজগঞ্জের কালিগঞ্জ থেকে গাজিপুর দিকে যাওয়া মাইক্রোবাস অপর দিকে ঢাকার দিক থেকে ছেড়ে আসা ট্রাকের সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়।
মাইক্রোবাসে থাকা যাত্রীদের মধ্যে থেকে ঘটনাস্থলেই মাইক্রোবাসের পাঁচজন যাত্রী নিহত হন। দুর্ঘটনার খবর পেয়ে টাঙ্গাইল ফায়ার সার্ভিস ও পুলিশ গিয়ে নিহত ও আহতদের উদ্ধার করে। নিহত ও আহত সকলেই মাইক্রোবাসে যাত্রী ছিল।
নিহতদের পরিচয় এখনও পাওয়া যায়নি। দুর্ঘটনার পরপর মহাসড়কের দুই পাশে অনন্ত ১০ কিলোমিটার এলাকায় যানজটের সৃষ্টি হয়। পরে পুলিশ দুর্ঘটনাকবলিত ট্রাক ও মাইক্রোবাসটি রেকার দিয়ে মহাসড়কের পাশে সরিয়ে নিলে এক ঘন্টা পর যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.