নয়াদিল্লি: ধর্ষণের অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় সাত বছরের জন্য জেলে যেতে হল ডেরা সাচা সৌদা প্রধান গুরমিত রাম রহিম সিং-কে৷ শুক্রবার হরিয়ানার পাঁচকুলায় সিবিআই-এর বিশেষ আদালতে বাবা রাম রহিমকে দোষী সাবস্ত করেন বিচারক জগদীপ সিং৷ কিন্তু এই ‘ধর্ষক গুরু’র কাছে ট্রেনিং নিয়ে না কি ক্রিকেট বিশ্ব মাতাচ্ছেন বিরাট কোহলি৷ বছর খানেক আগে একটি অনুষ্ঠানে এমটাই দাবী করেছিল বাবা রাম রহিম৷

জাতীয় দলে তখনও অভিষেক হয়নি৷ দিল্লির হয়ে রঞ্জি ট্রফি খেলার সময় সতীর্থ আশিস নেহেরা ও বিজয় দাহিয়ার সঙ্গে ডেরা সাচা সৌদা প্রধানের আশির্বাদ নিতে গিয়েছিলেন কোহলি৷ বাবা রাম রহিমের সঙ্গে বর্তমানে ভারত অধিনায়কের ছবিও দেখা গিয়েছে৷ ছবিতে পরিষ্কার দেখা যাচ্ছে, তার আশির্বাদ নিচ্ছেন বিরাট৷

বিরাট সম্পর্কে এক সাক্ষাৎকারে রাম রহিম বলেন, ‘বিরাট যখন বড় রান পাচ্ছিল না, তখন একবার আমার কাছে আসে৷ আমি ওকে নিয়মিত প্র্যাকটিস ও অবিরাম শেখার পরামর্শ দিই৷ ভারতীয় দলে সুযোগ পাওয়ার পর বিরাট আমাকে ধন্যবাদ জানিয়েছিল৷’ বাবা রাম রহিম আগেও নানা অপরাধমূলক কাজে যুক্ত ছিল৷ তার বিরুদ্ধে হত্যা এবং ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে অনেকবার৷

শুধু বিরাট কোহলি বা আশিস নেহেরা নয়, দেশের বক্সিং তারকা বিজেন্দ্রে সিং-কেও বাবা রাম রহিমের সঙ্গে একই মঞ্চে দেখা গিয়েছে৷ গত বছর এক সাক্ষাৎকারে বাবা রাম রহিম দাবি করেছিল, ‘জীবনে আমি প্রচুর সাফল্য পেয়েছি৷ জাতীয় স্তরে আমি ৩২ রকমের খেলায় অংশ নিয়েছি৷ পরে কোচিংও করিয়েছি৷ প্রচুর তরুণ আমার কাছে আসত৷ যেমন বক্সার বিজেন্দ্রর সিং, যে দেশকে অনেক পদক দিয়েছে৷ বিজেন্দ্রর ও কোহলি আমার কাছে শিখতে আসত৷ এখন কোহলি বিশ্বের অন্যতম সেরা ক্রিকেটার৷’

সিবিআই-এর বিশেষ আদালতে এদিন রায় ঘোষণা হতেই আদলত চত্বরের দখল নেয় সেনা। পরিস্থিতি মোকাবিলায় বাইরে প্রস্তুত ছিল পুলিশও। তবু অশান্তি রোখা যায়নি। লাঠি চালিয়ে, কাঁদানে গ্যাসের শেল ফাটিয়েও পাঁচকুলার পরিস্থিতি পুলিশ নিয়ন্ত্রণে ঘাম ছুটে যায় পুলিশের৷  পঞ্জাব এবং হরিয়ানার বিভিন্ন জায়গা গোলমালে মারা যায় বেশ কয়েকজন৷

ইতিমধ্যেই দু’টি রেলস্টেশনে আগুন লাগিয়ে দিয়েছে ক্ষিপ্ত ডেরা অনুগামীরা। দু’টি থানাতেও আগুন হয়েছে। জ্বালিয়ে দেওয়া হয়েছে টেলিফোন এক্সচেঞ্জ৷ ডেরা সচ্চা সৌদার সদর দফতর সিরসায় এবং পাঁচকুলায় ডেরা অনুগামীদের হাতে সংবাদমাধ্যমও প্রবল ভাবে আক্রান্ত হয়েছে বলে খবর৷ বেশ কয়েকটি টিভি চ্যানেলের ওবি ভ্যান জ্বালিয়ে দিয়েছে বিক্ষোভকারীরা৷

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.