ডেস্ক : ভারতের বিতর্কিত ধর্মগুরু গুরমিত রাম রহিম সিংয়ের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ প্রমাণিত হয়েছে। আজ শুক্রবার দেশটির হরিয়ানার প্রদেশের পাঁচকুলার একটি আদালত তার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ সত্য বলে ঘোষণা দেয়। এর পরই তার ভক্তরা পুলিশের সঙ্গে দাঙ্গায় জড়িয়ে পড়ে। রায় ঘোষণার পর এখন পর্যন্ত নানা স্থানে ২৮ জন নিহত ও ২০০ এর বেশি আহত হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে।

আগামী সোমবার জানা যাবে এই অপরাধে ধর্মগুরুর কী সাজা হবে। এর আগ পর্যন্ত রাম রহিমকে সেনা হেফাজতে রাখা হবে।

টাইমস অব ইন্ডিয়ার খবরে বলা হয়, গুরমিত রাম রহিম সিংয়ের ভক্তদের তাণ্ডবে অশান্ত পাঞ্জাব-হরিয়ানা৷ পাঁচকুলা ও লাগোয়া এলাকায় পরিস্থিতি সামাল দিতে জরুরি বৈঠক ডেকেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং৷

জানা গেছে, ধারালো অস্ত্র হাতে ভক্তরা একাধিক জায়গায় ভাঙচুর চালিয়ে আগুন ধরিয়ে দিয়েছে৷ চণ্ডীগড়ে একটি সিনেমা হল, শপিং মলে ভাঙচুরের পর আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়৷

রায় ঘোষণার পরই বিদ্যুৎহীন হয়ে যায় হরিয়ানা৷ পাঞ্জাব ও হরিয়ানায় ২টি রাজ্যেই ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে৷ দিল্লি, উত্তর প্রদেশেও জারি উচ্চ সতর্কতা৷ উত্তপ্ত সিরসায় মোতায়েন করা হয়েছে বাড়তি বাহিনী৷

পাঁচকুলায় অতিরিক্ত ৬ প্লাটুন সেনা মোতায়েন করা হয়েছে৷ অশান্তি সামলাতে শূন্যে গুলি চালানোর সঙ্গে সঙ্গে কাঁদানে গ্যাসের শেলও ছুঁড়া হচ্ছে৷ পাঞ্জাবের দুটি রেলস্টেশনে আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়েছে। সিমলা হাইওয়েতে বাবা রাম রহিমের ভক্তরা তাণ্ডব চালিয়েছে। একের পর এক গাড়ি ভাঙচুর করা হচ্ছে।

ভারতের সংবাদমাধ্যমগুলোর খবরে বলা হয়েছে, প্রায় ৬০ হাজার সমর্থক আদালতের বাইরে হাজির হয়েছেন। আদালতের রায় শোনার পরই কান্নায় ভেঙে পড়েন তাদের অনেকে। কেউ কেউ এই খবরটা শোনার পর জ্ঞানও হারান।

জানা গেছে, রাম রহিম ১০০ গাড়ির বহর নিয়ে পাঁচকুলা আদালতে এলেও মাত্র দুটি গাড়িকে আদালতে চত্বরে ঢোকার অনুমতি দেওয়া হয়। আজ সকালে হরিয়ানার সিরসায় নিজের সাংগঠনিক দপ্তর থেকে ১০০ গাড়ির কনভয় নিয়ে ২৫০ কিলোমিটার দূরের আদালতে আসেন তিনি।

এদিকে পাঞ্জাব ও হরিয়ানা রাজ্যে বাড়তি কয়েকশো কোম্পানি আধাসামরিক বাহিনী ও পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

আসলে ভারতের অজস্র গডম্যান বা ধর্মগুরুর মধ্যেও বাবা রাম রহিমের মতো বর্ণময় চরিত্র সম্ভবত আর একটিও নেই। তিনি একাধারে ধর্মপ্রচারক, সমাজ সংস্কারক, গায়ক, সিনেমার নায়ক ও পরিচালক।

২০০২ সালে ঘটে ধর্ষণের ঘটনাটি। বহুদিন ধরে মামলা চলার পর অবশেষে আজ, শুক্রবার মামলার রায় দেওয়া হলো৷

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.