ডেস্ক : রাজধানীসহ সারাদেশেই দফায় দফায় বেড়ে পেঁয়াজের দাম এখন দ্বিগুণ। ৩০ টাকার ভারতীয় পেঁয়াজ এখন কিনতে হচ্ছে ৬০ টাকা কেজিতে। পেঁয়াজের দামের এই উলম্ফনের কারণ হিসেবে ব্যবসায়ীরা বারবার বৃষ্টি আর বন্যাকেই দায়ী করেছেন।  তারা বলেছেন, ভারতে বন্যার কারণে পেঁয়াজের দাম বেড়েছে ফলে তার প্রভাব পড়েছে আমাদের বাজারেও।

তবে টানা বর্ষণের কারণে পেঁয়াজের দাম ‘উল্টো রথে’ চড়ে বসেছে চট্টগ্রামের খাতুনগঞ্জে।  টানা বৃষ্টিতে জলমগ্ন এই বাজারে সম্প্রতি দেখা দিয়েছে ক্রেতা সংকট। যার ফলে অনেকটা বাধ্য হয়েই সেখানকার ব্যবসায়ীরা কম দামে পেঁয়াজ ছাড়তে শুরু করেছেন।

খাতুনগঞ্জে দেখা গেছে, মাত্র একদিনের ব্যবধানে বাজারটিতে ভারতীয় পেঁয়াজের দাম কেজিতে কমেছে ৬ টাকা।

আজ সোমবার খাতুনগঞ্জ বাজার ঘুরে দেখা গেছে, ভারতীয় পেঁয়াজ পাইকারিতে প্রতি কোজি ৩৯ টাকা থেকে ৪০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। গতকাল একই কেজিতে বিক্রি হয়েছিল ৪৪ টাকা থেকে ৪৬ টাকায়।

অন্যদিকে, আজ দেশি পেঁয়াজ কেজিতে বিক্রি হচ্ছে ৪৩ টাকা থেকে ৪৫ টাকায়; যা গতকাল ৪৬ টাকা ৪৭ টাকায় বিক্রি হয়েছিল।

খাতুনগঞ্জের গ্রামীণ বাণিজ্যালয়ের স্বত্বাধিকারী বলয় পোদ্দার বলেন, গত ২ দিনের বৃষ্টিতে বেচা-বিক্রি তেমন না হওয়ায় পেঁয়াজের দাম কমেছে।

তবে এই দাম আবার বাড়বে কিনা সে বিষয়ে জানতে চাইলে বলয় পোদ্দার জানান, সেটা এখনই বলা সম্ভব না। পেঁয়াজের আমদানি বাড়লে দাম কমতেও পারে।

গত শুক্রবার রাজধানীর কারওয়ান বাজার, হাতিরপুলসহ কয়েকটি বাজারে দেশি পেঁয়াজ কেজিতে ৬০ টাকা দরে বিক্রি হতে দেখা যায়। এছাড়া আমদানি করা ভারতীয় পেঁয়াজ ৫৫ টাকা দরে বিক্রি হতে দেখা যায়। তবে আগের সপ্তাহে বিক্রি হয়েছিল ৪০ টাকা দরে।

এদিকে, দেশে চাহিদা মেটাতে পেঁয়াজ আমদানির সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। গত সপ্তাহে বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ জানান, প্রয়োজন অনুযায়ী পেঁয়াজ প্রতিবেশি দেশ ভারত থেকে আমদানি করা হয়। বন্যার কারণে সেখানেও পেঁয়াজের দাম বেশি। সে কারণেই আমদানিকৃত পেঁয়াজের দামও কিছুটা বেড়েছে।

তবে বিকল্প স্থান হিসেবে মিশর থেকে পেঁয়াজ আমদানি করা হয়েছে, অল্প সময়ের মধ্যে সেগুলো বাজারে আসবে বলে জানান তিনি। অগ্রাধিকার ভিত্তিতে মিশর থেকে আমদানিকৃত পেঁয়াজ ছাড় করণের জন্য চট্রগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষকে নির্দেশও প্রদান করা হয়েছে বলে জানান মন্ত্রী।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.