মাসকাওয়াথ আহসান : অযথা নারীবাদের কর্কশ সমালোচনা না করে উত্তরাধুনিক পুরুষবাদ চর্চা সময়োচিত।

উত্তরাধুনিক পুরুষবাদ চর্চার পূর্বশর্ত; নারীকে নিয়ে অতিরিক্ত কবিতা-গান লেখা-ছবি তোলা থেকে বিরত থাকা।

পথে ঘাটে অযথা নারীর দিকে তাকিয়ে থেকে নিজের ব্যক্তিত্বের ক্ষতি না করা। নারীকে চিন্তার জগতে মাত্রাতিরিক্ত জায়গা না দিয়ে ভাবতে হবে নিজের সমাজ আর কাজের উতকর্ষের কথা।

নারীর সঙ্গে প্রেম বা বন্ধুত্বের ক্ষেত্রে সম্পর্কের পূর্বশর্তগুলো আলোচনা করে নেয়া বাঞ্চনীয়। ক্রিকেট পার্টনারশিপের মতো নারী-পুরুষ সম্পর্কে যে কেউ রান-আউট হয়ে যেতে পারে; তা নিয়ে আদিম পদ্ধতিতে চেঁচিয়ে পাড়া মাথায় করা যাবে না; কলতলায় গিয়ে কাসুন্দি করা যাবে না; এবিষয়গুলো এযুগে আর চলে না; সে বিষয়ে সুস্পষ্ট ধারণা থাকতে হবে।

যে কোন মতবিরোধ ঝগড়া-মারামারি নয়; অহিংস যৌক্তিক বিতর্কের মাধ্যমে সমাধান করতে হবে।

রেষ্টুরেন্টে কোন নারীর সঙ্গে খেতে গেলে খাবার বিল দুজনকেই পরিশোধ করতে হবে। অর্থাৎ সম্পর্কটি হতে হবে সমতার ভিত্তিতে। পারস্পরিক শ্রদ্ধাবোধটিও নিশ্চিত করতে হবে।

তবে উত্তরাধুনিক পুরুষবাদের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ জায়গা নারী নির্যাতন ও ধর্ষণের বিরুদ্ধে সোচ্চার হওয়া; অপরাধীর শাস্তি নিশ্চিত করার ক্ষেত্রে সক্রিয় হওয়া। এতে করে পুরুষ সমাজটি সভ্য সমাজ হিসেবে পুনঃপ্রতিষ্ঠিত হবে।
লেখক : প্রবাসী সাংবাদিক, লেখা ফেসবুক টাইমলাইন থেকে সংগৃহীত।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.