ডেস্ক : রাজধানীর বনশ্রীর বি ব্লকের ৪নং রোডের একটি বাসায় রহস্যজনকভাবে মারা যাওয়া গৃহকর্মী লাইলী বেগমের গলা ও মাথায় আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।

শনিবার বিকেলে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগের প্রধান ডা. সোহেল মাহমুদ সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, আজ বিকেল ৩টা থেকে সাড়ে ৩টা পর্যন্ত লাইলী বেগমের ময়নাতদন্ত হয়। এসময় তার গলা ও মাথায় আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়।

তাকে ধর্ষণ করে হত্যা করা হয়েছে কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, এ ব্যাপারে জানতে সময় লাগবে। আলামত সংগ্রহ করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, শুক্রবার সকালে বনশ্রীর বি ব্লকের ৪নং রোডের একটি বাসায় গৃহকর্মী লাইলী বেগমের রহস্যজনক মৃত্যু হয়। এক পর্যায়ে এ ঘটনার জের ধরে পুরো বনশ্রী এলাকা রণক্ষেত্রে পরিণত হয়। লাইলীকে হত্যার অভিযোগ এনে তার পরিবার ও এলাকার বিক্ষুব্ধ লোকজন সাত তলা ওই বাড়িটিতে হামলা এবং রাস্তায় ভাঙচুর চালায়।

এসময় একটি গাড়িতে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেয় তারা। পুলিশ এসে তাদের সরানোর চেষ্টা করলে পুলিশ ও জনতার মধ্যে সংঘর্ষ বাধে। দফায় দফায় পুলিশের সঙ্গে স্থানীয় লোকজনের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া চলে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ কয়েক দফা ফাঁকা গুলি ছোড়ে। রাত ১০টার দিকে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে পুলিশ।

লাইলীর পরিবার পুলিশের কাছে হত্যার অভিযোগ করলেও বাড়ির মালিক মইন উদ্দিনের দাবি, তিনি হত্যা করেননি।

তিনি বলেন, সকালে বাসায় কাজ করতে এসে একটি কক্ষে ঢুকে দরজা বন্ধ করে দেন লাইলী। ডাকাডাকি করলে দরজা খুলছিল না। পরে বাড়ির ম্যানেজার এসে দরজা ভেঙে ঘরে ঢুকে দেখেন ফ্যানের সঙ্গে গলায় ওড়না প্যাঁচানো অবস্থায় ঝুলছে লাইলী।

এদিকে, এ ঘটনায় খিলগাঁও থানায় হত্যাসহ দুটি মামলা হয়েছে। এছাড়া, গৃহকর্তা মইনুদ্দিন, বাড়ির তত্ত্বাবধায়ক টিপুসহ তিনজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.