নিজস্ব প্রতিবেদক : চাল আমদানিতে শুল্ক কমিয়ে ৩৮ শতাংশ থেকে ১০ শতাংশ করা হয়েছে উল্লেখ করে বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেছেন, এতে প্রতি কেজি চালের দাম কমপক্ষে ৬ টাকা কমবে।

মঙ্গলবার সচিবালয়ে শুল্ক প্রত্যাহারের এ তথ্য জানিয়ে সাংবাদিকদের তোফায়েল আহমেদ বলেন, দেশে চালের সংকট নেই। মিল মালিকরা সিন্ডিকেট করে দাম বাড়িয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশেই চালের ওপর ট্যাক্স কমানো হয়েছে। কয়েক দিনের মধ্যেই দাম কমবে।

দু’একদিনের মধ্যেই এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি হবে উল্লেখ করে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার, জনগণের সরকার। তিনি জনগণের কষ্টের কথা চিন্তা করে চালের ওপর ধার্য করা ২৫ ভাগ শুল্ক ও ৩ ভাগ সম্পূরক শুল্ক কমিয়ে মোট ১০ ভাগ শুল্ক ধার্যের নির্দেশনা দিয়েছেন।

তিনি বলেন, খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ দেশের কৃষকদের নিরাপত্তা ও উৎপাদিত ধানের সঠিক দাম নিশ্চিতের জন্যেই ১০ শতাংশ থেকে চাল আমদানি শুল্ক ২৫ ভাগ করেছিল সরকার। সেই সঙ্গে আরোপ করা হয়েছিল আরো ৩ শতাংশ হারে সম্পূরক কর। কারণ কৃষক ধানের দাম না পেলে আবার সারা দেশে ছিঃ ছিঃ রব ওঠে। পত্রিকায়ও নানা ধরনের কথা লেখা হয়।

চালের দাম বৃদ্ধির জন্য মিল মালিকদের দায়ী করে বাণিজ্য মন্ত্রী জানান, হাওর অঞ্চলে এবার আগাম বন্যায় ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। অন্যান্য অঞ্চলেও ফসলে কিছু ক্ষতি হয়েছে। তবে এতটা ক্ষতি হয়নি যে, চাল আমদানি করতে হবে। মিল মালিকরা বেশি দাম পাওয়ার জন্যই এই কৃত্রিম সংকট তৈরি করেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.