ডেস্ক : যুক্তরাজ্যের উত্তর লন্ডনে মসজিদের কাছে পথচারীদের ওপর গাড়ি উঠিয়ে দেয়ার ঘটনায় নিহত ব্যক্তি বাংলাদেশি বলে প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাতে জানিয়েছে টেলিগ্রাফ।

প্রত্যক্ষদর্শীদের একজনের ভাতিজা সুলতান আহমেদ জানান, নিহত ব্যক্তি ছিলেন একজন বয়স্ক বাংলাদেশি। তিনি সেভেন সিস্টার্স রোডে অবস্থিত মুসলিম ওয়েলফেয়ার মসজিদে রোববার সন্ধ্যায় ইফতার শেষে মাগরিবের নামাজ পড়তে গিয়েছিলেন।

সুলতান আহমেদ বলেন, ‘আমার চাচা মাত্র মসজিদ থেকে বের হয়ে এগোচ্ছিলেন। এমন সময় তার সামনে থাকা একজন বয়স্ক লোক অসুস্থ হয়ে মাটিতে পড়ে যান। তখন সেখানে থাকা মুসল্লিদের অনেকেই ওই লোকের চারপাশে ভীড় করেন তাকে সাহায্য করার জন্য। ঠিক সেই সময়েই ওই ভীড়ের ওপর উঠে পড়ে গাড়িটি।’

কাভার্ড ভ্যানের ওই অতর্কিত হামলায় মাটিতে শুয়ে থাকা বৃদ্ধ সাথে সাথেই মারা যান বলে জানান সুলতান আহমেদ। চাচার বক্তব্যের বরাতে তিনি জানান, হামলাকারী গাড়িচালক ‘আমি সব মুসলিমকে হত্যা করতে চাই’ বলেও চিৎকার করছিল।

অন্য কয়েকজন প্রত্যক্ষদর্শী জানিয়েছেন, হামলা চালানো ওই ভ্যানটি নামাজ শেষ করে লোকজন বের হওয়ার অপেক্ষায় বেশ কিছুক্ষণ ধরেই রাস্তার এক পাশে পার্ক করা ছিল।

এ ঘটনায় আহত হয়েছে ১০ জন। ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী টেরেসা মে একে ‘সম্ভাব্য সন্ত্রাসী হামলা’ হিসেবে দেখে কাজ করতে লন্ডন পুলিশকে নির্দেশ দিয়েছেন।

লন্ডন মেট্রোপলিটান পুলিশ জানায়, রোববার স্থানীয় সময় রাতে উত্তর লন্ডনে ফিন্সবারি পার্ক মসজিদের কাছে ১০-১৫ জন পথচারীর ওপর দ্রুত গতিতে একটি কাভার্ড ভ্যান গাড়ি উঠে যায়। এ ঘটনায় বেশ কয়েকজন আহত হয়। রোববার দিবাগত রাত ১২.২০-এ পুলিশকে খবর দেয়া হয়।

তারপর থেকেই নিরাপত্তার স্বার্থে ঘটনাস্থলে অবস্থান করছে পুলিশ।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, হামলার সময়টায় রাস্তায় বহু মানুষের ভীড় ছিল।মনে করা হচ্ছে, হামলার শিকার বেশিরভাগ মানুষই সারাদিনের রোজা শেষে ইফতার করে মাগরিবের নামায আদায় করতে মসজিদে গিয়েছিলেন এবং নামায শেষে সেখান থেকে ফিরছিলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.