নিজস্ব প্রতিবেদক : গ্যাসের মূল্য ও নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে বামমোর্চা ডাকা সচিবালয় ঘেরাও কর্মসূচি পুলিশের বাধায় পণ্ড হয়ে গেছে।

মঙ্গলবার দুপুর ১২টার দিকে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধন করে দল বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি ও বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দলের নেতাকর্মীরা।

পরে ‘গণবিরোধী বাজেট, গ্যাসের বর্ধিত দাম প্রত্যাহার ও নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি রুখে দাঁড়ান’ লেখা সম্বলিত ব্যানার নিয়ে বামমোর্চার সমন্বয়ক জোনায়েদ সাকির নেতৃত্বে নেতাকর্মীরা সচিবালয়ের দিকে অগ্রসর হলে পুলিশ কাঁটাতার দিয়ে ব্যারিকেড দেয়।

এ সময় নেতাকর্মীরা ব্যারিকেড ভেঙে ভিতরে ঢোকার চেষ্টা করলে পুলিশের সঙ্গে তাদের ধাক্কাধাক্কি হয়। প্রায় পাঁচ মিনিটের মতো পুলিশের সঙ্গে তাদের কথা কাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে বামমোর্চার নেতাকর্মীরা পিছু হটেন।

Press

অধিকাংশ কর্মী চলে গেলে ঘটনাস্থলে কর্মসূচির বিষয়ে বামমোর্চার সমন্বয়ক জোনায়েদ সাকি জাগো নিউজকে বলেন, আমরা তিনটা দাবিতে আজ কর্মসূচি পালন করতে এসেছি। দুর্গত হাওর অঞ্চলের লোকজন এই রোজার দিনও দুরাবস্থার মধ্যে আছেন। তাদের এই সমস্যা সমাধানের জন্য অনেকগুলো দাবি আমরা তুলে ছিলাম। তাদের রেশনের ব্যবস্থা করা, ত্রাণ তৎপরতা জোরদার করা, ফসল না ওঠা পর্যন্ত তাদের ঋণ সুবিধা ইত্যাদি।

তিনি বলেন, আমরা অত্যন্ত মানবিক গ্রাউন্ড থেকে এটি করেছি। এক কোটি মানুষ সেখানে কষ্টে আছেন। এই ভয়াবহ নিষ্ঠুর সরকার এটার তোয়াক্কায় করছে না।

২০১৭-১৮ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটের বিষয়ে তিনি বলেন, এই বাজেট গণবিরোধী বাজেট। দুর্নীতি পোষণের বাজেট এবং জনগণের পকেট কেটে নাভিশ্বাস সৃষ্টির বাজেট। সরকার ব্যাংক লোপাটকারীদের ধরছে না, ঋণ খেলাপীদের ধরছে না। উল্টো ব্যাংকের মূলধন ঘাটতি পোষাতে জনগণের কাছ থেকে টাকা নিয়ে ব্যাংকে দেওয়া হচ্ছে।

কর্মসূচিতে পুলিশের বাধার বিষয়ে তিনি বলেন, আমরা শান্তিপূর্ণ কর্মসূচি পালন করছিলাম। কিন্তু পুলিশ তাতে বাঁধা দিয়েছে। পুলিশের সঙ্গে আমাদের ধস্তাধস্তিও হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, পুলিশের ক্ষমতা দিয়ে সরকার বেশিদিন থাকবে না। সরকারের সার্বিক যে অগণতান্ত্রিক শাসন, তারই বহিঃপ্রকাশ পুলিশের এই বাধা।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.