সর্বনিম্ন ফিতরা ৬৫ টাকা; সর্বোচ্চ ১৯৮০ টাকা
0.0Overall Score
Reader Rating: (0 Votes)

নিজস্ব প্রতিবেদক : এবারের জনপ্রতি সর্বনিম্ন ফিতরা সর্বনিম্ন ৬৫ টাকা থেকে সর্বোচ্চ ১ হাজার ৯৮০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। দেশের বাজারে গম বা আটার মূল্য হিসাব করে  এই ফিতরা নির্ধারণ করা হয়েছে। ২০১৬ সালেও সর্বনিম্ন ফিতরার পরিমাণ একই ছিল।

আজ বৃহস্পতিবার বায়তুল মোকাররমের ইমাম মোহাম্মদ মিজানুর রহমান এই তথ্য জানান। এর আগে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের সভাকক্ষে ফিতরা নির্ধারণী সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

Eid-Two-Baby

মিজানুরর রহমান জানান, এক কেজি ৬৫০ গ্রাম গম বা আটা অথবা খেঁজুর, কিসমিস, পনির বা যবের মধ্যে যেকোনো একটি পণ্যের ৩ কেজি ৩০০ গ্রামের বাজার মূল্য ফিতরা হিসেবে গরিবদের মধ্যে বিতরণ করা যায়। এই হিসেবে এবার সর্বনিম্ন ৬৫ টাকা ফিতরা নির্ধারণ করা হয়েছে। আর জনপ্রতি সর্বোচ্চ ১ হাজার ৯৮০ টাকা পর্যন্ত ফিতরা দেওয়া যাবে।

তিনি বলেন, ফিতরার জন্য নির্ধারিত ওজনের আটার দাম ৬৫ টাকা, যবের দাম ৫৬০ টাকা, কিসমিস ১২৫০ টাকা, খেঁজুর ১৬৫০ টাকা এবং পনিরের ১৯৮০ টাকা ধরে এই ফিতরা হিসাব করা হয়েছে। নিজ নিজ সামর্থ্য অনুসারে এসব পণ্যের যেকোনো একটির হিসাবে অথবা সমপরিমাণ দাম দিয়ে ফিতরা আদায় করা যাবে। তবে খুচরা বাজারে এসব পণ্যের দামে তারতম্য থাকতে পারে।

ইসলাম ধর্মের বিশ্বাস অনুযায়ী, প্রত্যেক সামর্থ্যবান মুসলমানের জন্য ফিতরা আদায় করা ওয়াজিব। নাবালক ছেলে-মেয়ের পক্ষ থেকে বাবাকে এই ফিতরা দিতে হয়। আর ঈদুল ফিতরের নামাজের আগেই তা দিতে হয়।

মিজানুর রহমানের সভাপতিত্বে বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের সভাকক্ষে এই সভায় ফিতরা নির্ধারণী কমিটির সদস্য ও বিশেষজ্ঞরা উপস্থিত ছিলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.