আবগারি শুল্ক বৃদ্ধি ব্যাংক আমানতকে নিরুৎসাহিত করবে : এফবিসিসিআই

 আবগারি শুল্ক বৃদ্ধি ব্যাংক আমানতকে নিরুৎসাহিত করবে : এফবিসিসিআই

নিজস্ব প্রতিবেদক : এবারের বাজেটে সরকার  ব্যাংকে আমানতের উপর আবগারি শুল্ক বাড়িয়েছে। ফলে মানুষ ব্যাংকে আমানত রাখতে নিরুৎসাহিত হবে। এছাড়া অর্থ লেনদেনের ক্ষেত্রে মানুষ ব্যাংকিং চ্যানেল ব্যবহার না করে ইনফরমাল চ্যানেল ব্যবহার বাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলে জানিয়েছে ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন বাংলাদেশ শিল্প বণিক ফেডারেশন (এফবিসিসিআই)।
শনিবার এফবিসিসিআই ভবনে বাজেট পরবর্তী এক যৌথ সংবাদ সম্মেলনে সংগঠনটির সভাপতি শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন একথা বলেন। তিনি স্বাস্থ্যহানিকর পণ্য ছাড়া সকল ক্ষেত্রে আবগারি শুল্ক প্রত্যাহারের দাবি জানান।
তিনি বলেন, ঘাটতি বাজেট পুরণে সরকারের ব্যাংকিং খাত থেকে ঋণ গ্রহণের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।  অভ্যন্তরীণ ঋণ ব্যবস্থা থেকে সরকার ৬০ হাজার ৩৫২ কোটি টাকা নেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ব্যাংক ব্যবস্থা থেকে সরকারের এমন বিশাল পরিমাণ অর্থ নিলে বেসরকারি খাতে ঋণ বিতরণে প্রভাব পরতে পারে।
সিগারেটের মূল্য বৃদ্ধির দাবি জানিয়ে তিনি বলেন, এখনও গ্রামে বিড়ির ব্যাপক প্রচলন আছে। তাই বিড়ির দাম বাড়ার পাশাপাশি সিগারেটের দাম বৃদ্ধি করা উচিৎ।
তিনি আরও বলেন, শিক্ষা খাতে শুল্কমুক্ত সুবিধা দেয়া হয়েছে। অথচ ইংরেজি মাধ্যম শিক্ষায় শুল্ক রাখা হয়েছে। দেশে আধুনিক শিক্ষার বিকাশ ঘটাতে ইংরেজি শিক্ষার উপর কর প্রত্যাহার করা উচিৎ। তিনি ভ্যাট আইনে বিশেষ সংশোধনী প্রস্তাবগুলো পুর্নবিবেচনায় নেওয়ারও আহ্বান জানান। প্রস্তাবগুলো হলো- কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের অর্থনৈতিক কার্যক্রমের বার্ষিক টার্নওভার সীমা ৩৬ লাখ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। ক্ষুদ্র, গ্রামীণ উদ্যোগ, কুটির শিল্প ইত্যাদি প্রান্তিক খাতের বিকাশে এবং ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী বা দোকানদারদের হিসাব সংরক্ষণের সক্ষমতার সীমাবদ্ধতা বিবেচনা করে অব্যাহতির এ সীমা যা ৫০ লাখ টাকা করার বিষয়টি পুনর্বিবেচনা করা। টার্নওভার করের সীমা ১ কোটি ৫০ লাখ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। তবে টার্নওভার ট্যাক্স ৩ শতাংশ থেকে বৃদ্ধি করে ৪ শতাংশ করা হয়েছে। বর্তমান পরিপ্রেক্ষিতে টার্নওভার ট্যাক্স ৩ শতাংশ অপরিবর্তিত রেখে টার্নওভার করের সীমা ৫ কোটি টাকা বা যৌক্তিক পর্যায়ে নিয়ে যাওয়া। মূসক আইনের ৩১ ধারায় বর্ণিত ৩ শতাংশ অগ্রিম কর সম্পর্কিত বিধান বিলুপ্তি করা।
এবারের বাজেট ৭০ শতাংশ ব্যবসা বান্ধব উল্লেখ করে তিনি বলেন, বাজেটে অবকাঠামো খাতে বরাদ্ধ বৃদ্ধি করা হয়েছে। ফলে দেশে শিল্পায়ন হবে। দেশে বিনিয়োগ বাড়বে। পোষাক খাতে কর্পোরেট কর ২০ শতাংশ থেকে কমিয়ে ১৫ শতাংশ করা হয়েছে। এতে পোষাক শিল্পে বিদ্যমান সমস্যার কিছুটা উন্নতি হবে। তবে এই খাতের বর্তমান অবস্থার কথা বিবেচনা করে আগামী ২ বছর ১০ শতাংশ কর আরোপের আহবান জানান। এছাড়া গ্রীণ কারখানাগুলোকে সিঙ্গেল ডিজিটের কর আরোপ করার সুপারিশ করেন। এতে কারখানা মালিকরা উৎসাহিত হবে বলে মনে করেন তিনি।
সংবাদ সম্মেলনে এফবিসিসিআই এর সাথে সম্পর্কিত ৯ টি ব্যবসায়ী সংগঠনের সভাপতি ও বিভিন্ন ব্যবসায়ী প্রতিনিধি উপস্থিত ছিলেন।

mimmahmud

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.