নিজস্ব প্রতিবেদক : আসন্ন বাজেটে সঞ্চয়পত্রের সুদের হার কমানো হবে বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। তিনি বলেন, সরকার সেভিং সার্টিফিকেট-এর সুদের হার কমানোর বিষয়ে চিন্তা-ভাবনা করছে। তবে নতুন রেট বিদ্যমান বাজারদরের চেয়ে কম হবে না।
আলোচনায় সভায় ডিসিসিআই সভাপতি আবুল কাসেম খান সরকারি-বেসরকারি অংশীদারীত্বের (পিপিপি) আওতায় উন্নয়ন প্রকল্পের কার্যক্রম পর্যবেক্ষণের জন্য “ন্যাশনাল ইনফ্রাস্ট্রাক্চার ডেভেলপমেন্ট অ্যান্ড মনিটরিং অ্যাডভাইজরি অথরিটি (নিডমা)” নামে একটি সংস্থা গঠন করার প্রস্তাব করেন।আজ রোববার সচিবালয়ে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিতের সঙ্গে ডিসিসিআই নেতাদের প্রাক-বাজেট আলোচনা হয়। এসময় অর্থমন্ত্রী এ কথা বলেন।
ডিসিসিআই সভাপতি আবুল কাসেম খান বলেন, বেসরকারি বিনিয়োগে স্থবিরতা কাটিয়ে উঠা এবং বেসরকারি বিনিয়োগকে ২২% থেকে ২৯% এ উন্নীত করণের লক্ষ্যে শিল্পায়ন সহজীকরণে আমাদের অবকাঠামোগত উন্নয়ন, বিদ্যুৎ ও জ্বালানি সরবরাহ বৃদ্ধি করতে প্রয়োজনীয় প্রাতিষ্ঠানিক কাঠামো ও মানবসম্পদ উন্নয়নে যথাযথ উদ্যোগ গ্রহণ প্রয়োজন।
তিনি বলেন, বর্তমান সরকার অবকাঠামোগত উন্নয়নে গত ৮ বছরে বিশেষত জ্বালানি ও বিদ্যুৎখাতে বড় ধরনের ভূমিকা রেখেছে। ঢাকা চেম্বার মনে করে, ডাবল ডিজিট প্রবৃদ্ধি অর্জন করার জন্য অবকাঠামোখাত উন্নয়নে বিনিয়োগ আরও বৃদ্ধি করা প্রয়োজন।
ডিসিসিআই প্রস্তাবিত বাজেটে ব্যক্তি শ্রেণির বর্তমান করসীমা আড়াই লাখ থেকে বাড়িয়ে সাড়ে ৩ লাখ টাকা; কর্পোরেট আয়কর- পাবলিক ট্রেডেড কোম্পানির ক্ষেত্রে ৩০% থেকে হ্রাস করে ২৫%, নন পাবলিক ট্রেডেড কোম্পানির ক্ষেত্রে ৩৫% থেকে হ্রাস করার প্রস্তাব করে।
ডিসিসিআই সভাপতি কর্পোরেট লভ্যাংশ শিল্পখাতে পুনঃবিনিয়োগের ক্ষেত্রে লভ্যাংশ ২০% এর পরিবর্তে ১৫% কর আরোপ করার প্রস্তাব করেন।
অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত বলেন, স্থানীয় ও বিদেশি বিনিয়োগকে উৎসাহিত করার জন্য দেশের সব বন্দরে ক্যাপিটাল মেশিনারিজ খালাস প্রক্রিয়া আরও সহজীকরণ করা হবে।
তিনি বলেন, রেমিট্যান্স প্রবাহের ধারা বাড়ানোর লক্ষ্যে রেমিট্যান্স পাঠানোর সব ধরনের চার্জ উল্লেখযোগ্যহারে কমানো হবে।
অর্থমন্ত্রী আরও বলেন, ঋণের সুদের হার কমানোর বিষয়ে সরকার সেভিং সার্টিফিকেট-এর সুদের হার কমানোর বিষয়টি নিয়ে চিন্তা-ভাবনা করছে, তবে তা বিদ্যমান বাজারদরের চেয়ে কম হবে না। তিনি ঢাকা চেম্বার কর্তৃক “ন্যাশনাল ইনফ্রাস্ট্রাক্চার ডেভেলপমেন্ট অ্যান্ড মনিটরিং অ্যাডভাইজরি অথরিটি (নিডমা)” গঠনের প্রস্তাব বিবেচনা করা হবে বলে জানান।
অনুষ্ঠানে ডিসিসিআই ঊর্ধ্বতন সহ-সভাপতি কামরুল ইসলাম, ডিসিসিআই পরিচালক হুমায়ুন রশিদ, মো. আলাউদ্দিন মালিক, রিয়াদ হোসেন, সেলিম আকতার খান বক্তব্য রাখেন।
ডিসিসিআই সহ-সভাপতি হোসেন এ সিকদার, পরিচালক ইমরান আহমেদ, আতিক-ই-রাব্বানী, এফসিএ, কে এম এন মঞ্জুরুল হক, রাশেদুল আহসান এবং মহাসচিব এএইচএম রেজাউল কবির এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.